আলোচিত

করোনায় আক্রান্ত ৫৬ সাংবাদিক

বার্তাবাহক ডেস্ক : খবর করতে গিয়ে ভারতে মোট ৫৬ জন সাংবাদিক করোনায় আক্রান্ত হলেন। ৫৩ জন মুম্বইতে এবং তিন জন চেন্নাইতে।

মুম্বই সহ মহারাষ্ট্র জুড়েই করোনা ভয়ঙ্কর আকার নিয়েছে। তাই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে যে সব সাংবাদিকবিভিন্ন জায়গায় ঘুরে রিপোর্টিং করছেন, তাঁদের বিশেষ পরীক্ষার ব্যবস্থা করেছিল পুরসভা ও সাংবাদিকদের একটি সংস্থা। মোট ১৭৪ জন সাংবাদিক ও চিত্র সাংবাদিকের করোনা পরীক্ষা করা হয়। তার মধ্যে ৫৩ জন করোনায় আক্রান্ত বলে জানা গিয়েছে। তাঁরা বেশির ভাগই টেলিভিশনের সাংবাদিক। তাঁদের অধিকাংশের মধ্যেই করোনার লক্ষণ ছিল না। একটি টিভি চ্যানেলের অধিকাংশ রিপোর্টারের করোনা ধরা পড়েছে।

চেন্নাইতে আক্রান্ত হয়েছেন তিন সাংবাদিক। তাঁদের অবশ্য করোনার লক্ষণ ছিল বলে পরীক্ষা করানো হয়েছিল। চেন্নাইতেও এখন সাংবাদিকদের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। ভারতের বাকি শহর থেকে সাংবাদিকদের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর নেই। কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, তাঁদের কাছে দুই রাজ্যের ৫৬ জন সাংবাদিকের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার তথ্যই আছে।

তবে এটাও ঠিক মহারাষ্ট্রের মতো অন্য রাজ্যে সাংবাদিকদের করোনা পরীক্ষা হচ্ছে না। হলে হয়তো ছবিটা অন্যরকম হতে পারে। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল জানিয়েছেন, তিনিও অবিলম্বে সাংবাদিকদের জন্য বিশেষ পরীক্ষার ব্যবস্থা করবেন।

পশ্চিমবঙ্গে, বিশেষ করে কলকাতায় এখনও পর্যন্ত সাংবাদিকদের করোনায় আক্রান্তের কোনও খবর নেই। জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শুভাশিস মৈত্র জানিয়েছেন, ”মুম্বইয়ের মতো ব্যবস্থা কলকাতায় নেওয়া হয়নি। আলাদা করে সাংবাদিকদের করোনা পরীক্ষা হয়নি। আর মুম্বইতে তো অনেকেরই করোনার কোনও লক্ষণ ছিল না। তাই এখানেও পরীক্ষা না হলে পরিস্থিতি বোঝা যাবে না।”

মুম্বইয়ে এতজন সাংবাদিকের আক্রান্তহওয়ার কারণ কী? মহারাষ্ট্রের সাংবাদিক সুনীল চাওকে বলেছেন, ”আসলে মুম্বই শহরে করোনা ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে। মুম্বই খুবই ঘিঞ্জি শহর। সেখানে ঘিঞ্জি এলাকায়, ধারাভি সহ বিভিন্ন বস্তিতে গিয়ে, বাজারে গিয়ে সাংবাদিকদের কাজ করতে হচ্ছে। ফলে তাঁদের করোনায় আক্রান্ত হওয়া স্বাভাবিক। তাঁরা বিপজ্জনক এলাকায় কাজ করলেও সেইভাবে কোনও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয় ন। তাই এতজন আক্রান্ত হয়েছেন বলে মনে হয়।”

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close