অর্থনীতিআলোচিতজাতীয়স্বাস্থ্য

ঈদের শপিং চললে সবকিছু খুলে দিতে অসুবিধা কোথায়?

বার্তাবাহক ডেস্ক : করোনার মধ্যে পোশাক কারখানা আগেই খুলে গেছে। ১০ মে থেকে খুলছে শপিং মল- দোকানপাট। দাবি উঠেছে মসজিদ খুলে দেয়ার। যানবাহন চালু করার। পরিবহণ শ্রমিকেরা এই দাবিতে মঙ্গলবার ঢাকায় বিক্ষোভও করেছেন।

প্রশ্ন উঠেছে ঈদের শপিং চললে সবকিছু খুলে দিতে অসুবিধা কোথায়?

পোশাক কারখানা খুলেছে রপ্তানি ধরে রাখতে। অর্ডার যাতে আর বাতিল না হয় সেই যুক্তিতে। আর এবার দোকানপাট ও শপিং মল খুলছে ঈদের কেনাকাটা করার জন্য। তবে সরকার বলছে এগুলো হবে সীমিত পরিসরে। সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেছেন, ‘‘ঈদে মানুষ একটু কেনাকাটা করবে না তা কি হয়?’’

বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন সরকারকে ধন্যবাদ দিয়ে জানান, ‘‘শপিং মল আর দোকান আছে দেশে ৩০ লাখ। আর শুধু শপিং মল আছে ২৫ হাজার। আর সব মিলিয়ে ১৫ জন বা তার কম কর্মচারি নিয়ে কাজ করে এরকম ক্ষূদ্র ব্যবসা আছে লাখ আর মোট কর্মী এক কোটি ২০ লাখ। এটা বিবিএস-এর হিসাব। তাদের আয় উপার্জন বন্ধ হয়ে গেছে। এই ঈদকে সামনে রেখেও যদি দোকানপাট খোলা না যায় তাহলে না খেয়ে মরতে হবে। তাই সরকার সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

‘‘আমরা সারা দেশে স্বাস্থ্যবিধি মেলে শপিং মল ও দোকানপাট খোলার প্রস্তুতি নিচ্ছি। ১০ তারিখে খুলে যাবে৷ আমরা শুধু নিজেরাই স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মানব তা নয়, ক্রেতারাও যাতে মানেন সে ব্যবস্থা করছি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে লকডাউন প্রত্যাহার করে সবকিছু খুলে দেয়া হচ্ছে। আমরা কেন খুলব না?,’’ মন্তব্য তার।

মসজিদ খোলার দাবি
মসজিদও খুলে দেয়ার দাবি উঠছে। এখন সাধারণ নামাজে পাঁচজন, জুমার নামাজে ১০ এবং তারাবিতে সর্বোচ্চ ১২ জন নামাজ আদায়ের নির্দেশ আছে। কিন্তু বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক বলেন, ‘‘এখনতো পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসছে। গার্মেন্টস খুলেছে, দোকানপাট, শপিংমল খুলে যাচ্ছে তাহলে মসজিদ স্বাভাবিকভাবে খুলে দিতে অসুবিধা কোথায়? মসজিদেও মুসল্লিরা সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ আদায় করবেন। প্রয়োজনে অল্প সময় অবস্থান করে শুধু ফরজ নামাজ আদায় করবেন এইসব শর্তে মসজিদ খুলে দেয়ার দাবি জানাচ্ছি।’’

পরিবহণ শ্রমিকেরা ঢাকার ভিতরে ও আন্তঃজেলা বাস চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার দাবিতে মঙ্গলবার ঢাকার গাবতলীসহ বিভিন্ন এলকায় মিছিল ও বিক্ষোভ করেছেন। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী বলেন, ‘‘পরিবহণ শ্রমিকরা এখন বাধ্য হচ্ছেন মাঠে নামতে। আমাদের দেখার কেউ নেই। কেউ আমাদের সহায়তার জন্য এগিয়ে আসেনি। পেটে ভাত না থাকলে আমরা করোনা দিয়ে কী করব?’’ তিনি বলেন, ‘‘ঈদ শপিং, দোকাপাট, গার্মেন্টস খুললে আমরা কী দোষ করলাম৷আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে গাড়ি চালাবো। মাস্ক ব্যবহার করব। গাড়িতে স্যানিটাইজার রাখব। সামাজিত দূরত্বের জন্য যাত্রী কম নেবো। সারাদেশে বাস-মিনিবাসসহ যানবাহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হোক।’’ নৌযান শ্রমিকরাও একই দাবি তুলেছেন।

গত ২৬ মার্চ থেকে বাংলাদেশে সাধারণ ছুটির নামে করোনা প্রতিারোধে লকডাউন শুরু হয়। ধাপে ধাপে এটা ১৬ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে৷ সারাদেশে জরুরি সেবা ছাড়া আর সববিকছু বন্ধের কথা বলা হয়। কিন্তু শুরু থেকেই সাধারণ ছুটির নামে এই লকডাউনের কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন ছিলো। কারণ কোনো কিছুই সঠিকভাবে মানা হচ্ছিল না। আর এখন এই যে কথিত সীমিত আকারে সবকিছু খুলে দেয়ার প্রবণতা শুরু হয়েছে তাকে আত্মঘাতী মনে করেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

কেন আত্মঘাতী?
বাংলাদেশে করোনায় আক্রান্ত বাড়ছে। এর প্রবণতা উর্ধগামী৷ গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা একদিনে সর্বোচ্চ ৭৮৬ জন। প্রায় প্রতিদিনই আগের দিনের তুলনায় বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। এপর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ১০ হাজার ৯২৯ জন৷ আর মারা গেছেন ১৮৩ জন। ২৪ ঘণ্টায় টেস্ট করা হয়েছে পাঁচ হাজার ৭১১ টি নমুনা।

প্রিভেন্টিভ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা লেনিন চৌধুরী বলেন, ‘‘মহামারির নিয়ম হলো এক পর্যায়ে শীর্ষে চলে যায়। তারপর ধীরে ধীরে কমতে থাকে। যখন কমতে থাকে তখন নিয়ম মেনে ধীরে ধীরে সবকিছু খুলতে হয়। আমাদের এখানে করোনার যে প্রবণতা তাতে এখনো আক্রান্তে শীর্ষে যায়নি। এখনো বাড়ছে। আজকেও(মঙ্গলবার) আক্রান্ত অতীতের যেকোনো দিনের চেয়ে বেশি।’’ তিনি বলেন, ‘‘অন্যদেশের মতো আমাদের এখানে দ্রুত পিকে যাচ্ছেনা। এর কারণ হলো আমাদের এখানে আমরা টেস্ট কম করছি। যদি প্রতিদিন ৫০হাজার চেস্ট করা যেত তাহলে আমরা পরিস্থিতি বুঝতে পারতাম। আমরা পরিস্থিতি না বুঝেই সবকিছু খুলে দিচ্ছি। এতে করোনা আরো ভয়াবহভাবে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখছি আমি।’’

তবে অর্থনেতিক কর্মকান্ড স্বাস্থ্যবিধি মেনে সচল রাখার পক্ষে তিনি। আর সেটার জন্য একটি সমন্বিত ও কার্যকর পরিকল্পনা দরকার বলে তিনি মনে কেন। তিনি বলেন, ‘‘পোশাক কারখানা খোলার আগে কর্মীদের এন্টিজেন ও এন্টিবডি পরক্ষার দরকার ছিলো। তাহলে ভাইরাস সংক্রমনের বাস্তব অবস্থা জানা যেত৷ সেটা করা হয়নি।

‘‘লকডাউন কার্যকর করতে হলে খাবারের নিশ্চয়তা দিতে হয়। সরকার লাখ লাখ টন খাবার মজুদ থাকার কথা বললেও বাস্তবে তা দেখা যাচ্ছেনা। মানুষ খাবার পাচ্ছেনা। তাই সরকার এখন সবকিছু খুলে দিয়ে এমন একটা ধারনা দেয়ার চেষ্টা করছেন যে করোনা কমে যাচ্ছে, ভয় নাই৷ এটা আত্মঘাতী,’’ বলেন এই জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ।

ঈদের বাজারের কথা বলি কিভাবে!
আইইডিসিআর-এর সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মোশতাক হোসেন বলেন, ‘‘এখন করোনা একজন থেকে তিনজনে ছাড়াচ্ছে। কিন্তু নিয়ম হলে যখন একজন থেকে সর্বোচ্চ একজনের বেশি ছড়াবে না তখন ধীরে ধীরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বাভাবিক অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডসহ স্বাভাবিক কাজকর্ম শুরু করা যাবে। কিন্তু আমাদের এখানো তো সেই পরিস্থিতি এখনো হয়নি। এখানে তো আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে।’’

তিনি বলেন, ‘‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এনিয়ে গাইড লাইন আছে। সেখানে প্রথম শর্ত হলো সংক্রমণের হার নিম্নগামী হতে হবে। আর এটা হতে হবে প্রমাণ ভিত্তিক। একজন থেকে একজনের কম আক্রান্ত হতে হবে। আর ডুয়েল স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, অর্থাৎ করোনা এবং করোনার বাইরের চিবিৎসা নিশ্চিত করতে হবে। সংক্রমণের হার যখন বাড়ছে তখন আমরা সবকিছু খুলে দিচ্ছি। এটা কিভাবে হয়! এখনতো আরো কড়াকড়ি করা প্রয়োজন।’’

‘‘জরুরি অর্থনেতিক কর্মকান্ড ও সেবা এই সময়ে চালু রাখতে হবে। তবে তারও কিছু নিয়ম আছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে হাসপাতাল খোলা আছে, সংবাদ মাধ্যম চলছে। প্রয়োজনে কিছু দোকানও চলতে পারে। কিছু যানবাহনও চলতে পারে। চলতে পারে আরো কিছু অর্থনেতিক কর্মকান্ড। কিন্তু আমরা ঈদের বাজারের কথা বলি কিভাবে! এই করোনায় ঈদ আসে কিভাবে?,’’ বলেন আইইডিসিআর-এর সাকেব এই বিজ্ঞানী।

তিনি বলেন, ‘‘আসলে সত্যিকার লকডাউন করতে হলে সুবিধা বঞ্চিত মানুষের পাশে রাষ্ট্র ও সমাজকে দাঁড়াতে হবে। সেই ব্যর্থতা থেকেই এখন নানা ধরনের অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে। এর ফল খারাপ হবে।’’

এদিকে দোকানপাট খোলা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দায়িত্বশীল কোনো কর্মকর্তা কথা বলতে রাজি হননি। এমনকি করোনা চিকিৎসায় বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে যে চিকৎসকেরা নেতৃত্ব দিচ্ছেন তারাও মন্তব্য করতে নারাজ।

শুধু প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘‘এটা তো প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত। আমি মন্তব্য করি কিভাবে?’’

সূত্র: ডয়চে ভেলে

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close