গাজীপুরসারাদেশ

কালীগঞ্জে চাচিকে ধর্ষণ: ১৬ দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি সফিকুল, শঙ্কায় ভুক্তভোগীর পরিবার!

বার্তাবাহক ডেস্ক : কালীগঞ্জে প্রতিবেশী চাচিকে ধর্ষণের অভিযোগে সফিকুল ইসলাম (৩৭) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তবে ধর্ষণের ঘটনার ১৬ দিন পেরিয়ে গেলেও অভিযুক্ত সফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি থানা পুলিশ।  

মামলার আসামি গ্রেপ্তার না হওয়ায় সঠিক বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে ভুক্তভোগীর পরিবার। তবে সফিকুলকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছেন, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মফিজুর রহমান মল্লিক।

মামলায় অভিযুক্ত সফিকুল ইসলাম কালীগঞ্জের ভাটিরা এলাকার জুমুর উদ্দিন বেপারীর ছেলে। সে রাজমিস্ত্রীদের সহকারী হিসেবে কাজ করে। সফিকুল ওই গৃহবধূর প্রতিবেশী ভাসুরের ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ৩০ অক্টোবর (শুক্রবার) রাতে ভুক্তভোগী গৃহবধূর স্বামী বাড়ির বাহিরে ছিলেন। স্বামী বাড়ি ফিরতে দেরি হওয়ায় গৃহবধু ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন। রাত আনুমানিক সাড়ে ৮ টার দিকে গৃহবধূর প্রতিবেশী ভাসুরের ছেলে সফিকুল ইসলাম তার ঘরের দরজায় কড়া নাড়ে। ওই সময় স্বামী এসেছে ভেবে দরজা খুলে দেয় ভুক্তভোগী গৃহবধূ। তখন সফিকুল গৃহবধূকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে ঘরের ভেতরে প্রবেশ করে। পরে গৃহবধূর মুখ বেঁধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে সফিকুল। এরপর গৃহবধূকে উলঙ্গ অবস্থায় ফেলে সফিকুল পালিয়ে যায়। পরে মুখের বাঁধন খুলে গৃহবধূ ডাক চিৎকার করলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যায়। পরদিন ৩১ অক্টোবর (শনিবার) রাতে ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ (৫২) বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ওই গৃহবধূর স্বজনরা বলেন, ‘মামলা দায়েরের পরদিন ১ নভেম্বর রোববার দুপুরে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হলেও এখনো পর্যন্ত রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। অভিযুক্ত সফিকুল ইসলাম তার বোনের বাড়ি নরসিংদীতে থাকতে পরে বলে ধারণা করা হচ্ছে’।

নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর ছেলে বলেন, ‘এখনও আসামি সফিকুল ইসলামকে ধরতে পারেনি পুলিশ। সফিকুল ইসলামের স্বজনরা এলাকায় বিভিন্ন ধরনের উস্কানিমূলক মন্তব্য প্রচার করছে। তাই এই ঘটনার বিচার পাওয়া নিয়ে আমরা শঙ্কায় আছি। মামলা দায়েরর পর দুই দিন পুলিশ এলাকায় এসেছিল তথ্য সংগ্রহ করতে’।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মফিজুর রহমান মল্লিক বলেন, ‘অভিযুক্ত সফিকুলকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়েছে। মামলার তদন্ত চলছে’।

 

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close