সারাদেশ

কালীগঞ্জে সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবীতে গ্রামবাসীর প্রতিবাদ সভা

বার্তাবাহক ডেস্ক : গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার নাগরীর ইউনিয়নের কাকালিয়া এলাকায় সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবীতে প্রতিবাদ সভা করেছে গ্রামবাসী।

সোমবার বিকেলে কাকালিয়া গ্রামে এ প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সন্ত্রাসী হামলার শিকার কাকালিয়া গ্রামের মৃত ফেলু মিয়ার ছেলে আব্দুর রউফ (৭০) এবং তার ছেলে হাসেম (২৫)।

আব্দুর রউফ তালা-চাবি মেরামতের কাজ করেন এবং তার ছেলে পোশাক কারখানার শ্রমিক।

সন্ত্রাসী হামলার শিকার আব্দুর রউফ বাদী হয়ে স্থানীয় আব্বাস মিয়ার ছেলে সন্ত্রাসী আল আমিন(২৫) সহ তার সহযোগীদের নামে কালীগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত রবিবার বিকালে আব্দুর রউফ এবং তার ছেলে হাসেমকে রাস্তা থেকে ডেকে নিয়ে যায় স্থানীয় সন্ত্রাসী আল আমিন। পরে তাদের আল আমিনসহ তার সহযোগীরা ঘরের ভিতরে আটকে রেখে লাঠি-সোটা ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তাদের রক্তাক্ত জখম অবস্থায় উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

প্রতিবাদ সভায় স্থানীয় প্রায় তিন শতাধিক নারী-পুরুষ অংশ গ্রহন করে। এ সময় এঘটনায় জড়িত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও হামলার দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবী জানিয়ে মিছিল করে।

প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন- উপজেলা আ-লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল মতিন সরকার, নাগরীর ২নং ওর্য়াডের সাবেক মেম্বার ও আ-লীগ সভাপতি মো. মস্তফা সরকার, কৃষকলীগ সভাপতি মকবুল হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও গ্রাম পুলিশের সভাপতি দুলাল সরকার, আ-লীগ নেতা আব্দুছ ছামাদ, নাজির সরকার, মো. মোমেন সরকার, বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম, রুহুল আমিন, সরকার, সাদ্দাম মিয়া, মাফিয়া, মহিনুল সরকার, সাজেদা, পারভীন, আমির হোসেন, টুক্কা মিয়া, সুফিয়া বেগম, টুকুনালী, হামিদা, সাদিয়া, হনুফা, আরমান মিয়া, ইয়ারন বেগম, ফারুক মিয়া, নাজমা বেগম,  ফজলু মিয়া, লাইলী বেগম, আসমা,  কুহিনুর বেগম, সপ্না, বাসন্তী, সাইফুল ইসলাম, সুমি বেগম, শরিফ মিয়া, নুরু মিয়া, যায়েদা বেগম, রুজিনা আক্তার, মুন্নি আক্তার, জুয়েল, আব্দুর রউফ, জসিম উদ্দিনসহ এলাকার গণমান্য ব্যক্তিবর্গ।

কালীগঞ্জ থানার সহকারী উপ পরিদর্শক (এএসআই) ইকবাল হোসেন অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে জানান, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ঘটনার তদন্ত চলছে। মঙ্গলবার বিকেলে উভয় পক্ষকে থানায় আসতে বলা হয়েছে।

অভিযুক্ত আল আমিন হামলার কথা অস্বীকার করে জানান, আমি নাগরী ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক। দলীয় অভ্যন্তরীণ কোন্দল আর স্বার্থগত কারণে এ ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছে এবং তাদের ইন্ধন জোগাচ্ছে আমার প্রতিপক্ষ।

এলাকাবাসী জানায়, সন্ত্রাসী আল আমিন দলের নাম ভাংগিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম করে যাচ্ছে। তার অত্যাচারে গ্রামবাসী অতিষ্ঠ। আমরা অনতিবিলম্বে তাকে গ্রেফতার ও সু-বিচার চাই।

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close