বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

অ্যাপে মিলছে পুঁটি-পাবদা

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক : ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ‘মুড়িঘণ্ট’ নামে একটি অ্যাপ নিয়ে ইতোমধ্যে পরীক্ষামূলকভাবে বাঙালির ঘরে বাংলাদেশি মাছ দেওয়া শুরু হয়েছে।

শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে অ্যাপটি বাণিজ্যিক যাত্রাও শুরু করতে যাচ্ছে। কলকাতার নলবনে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় শোরুমও খোলা হয়েছে। যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘মুড়িঘণ্ট ফিস ক্যাফে’।

এ অ্যাপের মাধ্যমে পাওয়া যাবে তেলাপিয়া, পাবদা, পুঁটি, সরপুঁটি থেকে মরলা কিংবা দেশি ট্যাঙরা-মাগুর ইত্যাদি বাংলাদেশের জনপ্রিয় মাছ। পশ্চিমবঙ্গবাসীর কাছে শুধু বাংলাদেশি টাটকা মাছ নয়, এ ছাড়া মাছ দিয়ে রান্না করা বিভিন্ন পদ হাজির করতে অভিনব এক প্রয়াসের খোঁজ মিলেছে কলকাতায়।

উদ্যোক্তারা বলছেন, শুধুই যে বাংলাদেশি টাটকা মাছ কিংবা মাছের রান্না করা মেনু থাকছে তা নয়। ভারতীয় বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রজাতির টাটকা মাছও পাওয়া যাবে ‘মুড়িঘণ্ট’ অ্যাপে। কলকাতা শহরে অ্যাপে অর্ডার করলে দুুই থেকে আড়াই ঘণ্টার মধ্যে পছন্দের মাছ পৌঁছে যাবে ক্রেতার দরজায়। তবে, জেলা শহরে এখনো পর্যন্ত একদিন পরই মিলবে এই পরিষেবা।

মুড়িঘোণ্টের অংশীদার মিহির সাহানা জানান, বাংলাদেশের মাছের একটা বিপুল চাহিদা আছে পশ্চিমবঙ্গে। অনেক বছর ধরে এই চাহিদার কথা ভেবেই আমদানিকারকরা প্রচুর বাংলাদেশি মাছ আনেন পশ্চিমবঙ্গে। কিন্তু বাজারে ঢুকে গেলে স্থানীয় মাছ বিক্রেতারা বাংলাদেশি সুস্বাদু মাছ পশ্চিমবঙ্গের মাছ বলেই বিক্রি করে দেন। এতে বাংলাদেশি মাছের ব্র্যান্ডিং হচ্ছিল না।

তবে, তারা এটা লুকাবে না। বরং গর্বের সঙ্গেই বাংলাদেশি মাছ হিসেবে বাঙালির হেঁসেলে পৌঁছে দেবে। এতে ইলিশ মাছের পাশাপাশি বাংলাদেশের মাছের অন্য ছোট্ট মাছের আলাদা করে ব্র্যান্ডিং হবে। উত্তর চব্বিশ পরগনার নৈহাটি, উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর এবং বীরভূমে শতাধিক পুকুর রয়েছে উদ্যোক্তাদের। বাংলাদেশ থেকে মাছের বীজ এনে সেখানে চাষ করা হয়। সেই মাছই অ্যাপে পাওয়া যাবে।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের প্রসিদ্ধ কিছু মাছও মিলবে অ্যাপে। যেমন, গলদা চিংড়ি, বাগদা চিংড়ি, পোয়া (স্থানীয় ভাষায় ভোলা মাছ বলা হয়), বাতাসি, বাটা, সোল, বাইন ইত্যাদি।

তবে, মুড়িঘণ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বাংলাদেশ সরকার যদি ইলিশ মাছের ওপর থেকে রফতানির নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে, তবে তারা পদ্মার ইলিশ মাছও অ্যাপের মাধ্যমে পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিদের পাতে হাজির করবে।

সূত্র: সময় নিউজ

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close