খেলাধুলা

ওয়ানডের ইতিহাস নতুন করে লিখল ইংল্যান্ড

খেলাধুলা ডেস্ক : চলছে ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’ ফুটবল বিশ্বকাপ। সবার দৃষ্টি এখন রাশিয়ায়। ক্রীড়ামোদীদের সব রোমাঞ্চ এখন ফুটবলের এই মহা আসরকে ঘিরেই। কিন্তু এর মাঝেও ক্রিকেটের খবর রাখেন যারা, তারা নিশ্চয়ই ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের দানবীয় ইনিংস ইতোমধ্যে দেখে ফেলেছেন। যে দানবীয় ইনিংসে ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাস নতুন করে লিখেছেন জনি বেয়ারস্টো-অ্যালেক্স হেলসরা, গড়েছেন বিশ্বরেকর্ড। প্রথমবারের মতো ওয়ানডে ক্রিকেট দেখল সাড়ে চারশ রান।

পাঁচ ম্যাচ সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে মঙ্গলবার নটিংহ্যামে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ছয় উইকেটে ৪৮১ রান করেছে ইংল্যান্ড। ওয়ানডের ইতিহাসে এটাই সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ। এরআগের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ ছিল ৪৪৪ রান। ওটাও ছিল ইংলিশদের দখলে। ২০১৬ সালে নটিংহ্যামে অ্যালেক্স হেলসের সেঞ্চুরি এবং জো রুট, জস বাটলার ও ইয়ন মরগানের হাফ সেঞ্চুরিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে ওই রান তুলেছিল ক্রিকেটের জনক দেশটি।

নিজেদের এবং ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাস নতুন করে লেখার প্রথম মিশনেও ব্যাট হাতে টর্নেডো বইয়ে দিয়েছিলেন অ্যালেক্স হেলস। তার ১২২ বলে ১৭১ রানের ইনিংসই পাকিস্তানের বিপক্ষে ইংল্যান্ডকে ৪৪৪ রানে পৌঁছে দিয়েছিল। দুই বছর পর আবারও ইতিহাস বদলে দেওয়ার মিশনে ব্যাটটাকে খোলা তরবারিতে পরিণত করলেন ইংলিশ এই ব্যাটসম্যান। এবার খেললেন ৯২ বলে ১৪৭ রানের ইনিংস।

তবে এবার হেলস একাই নন, সঙ্গে পেয়েছেন ওপেনার জনি বেয়ারস্টোকে। ডানহাতি এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান করেছেন ৯২ বলে ১৩৯ রান। এরআগে আরেক ওপেনার জেসন রয় খেলে গেছেন ৬১ বলে ৮২ রানের ইনিংস। পাঁচ নম্বরে ব্যাটিং করতে নামা ইংলিশ অধিনায়ক ইয়ন মরগান যোগ করেছেন ৩০ বলে ৬৭ রানের ঝড়ো ইনিংস। আর এতে বিশ্বরেকর্ড যোগ হয়ে গেছে তাদের নামের পাশে। অ্যালেক্স হেলসের সঙ্গে মিল রয়ে গেলে ভেন্যুরও। ৪৪৪ রান করে রেকর্ড গড়ার দিনও নটিংহ্যামেই পাকিস্তানের মুখোমুখি হয়েছিল ইংল্যান্ড।

টস হেরে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামা ইংল্যান্ড এদিন উদ্বোধনী জুটি থেকেই ১৫৯ রান পায়। ৬১ বলে সাতটি চার ও চারটি ছক্কায় ৮২ রান করে জেসন রয় বিদায় নিলে হেলসের সঙ্গে জুটি বাঁধেন বেয়ারস্টো। এই জুটি থেকে আসে ১৫১ রান। এসময় বেয়ারস্টো ও হেলস দুজনই সেঞ্চুরি তুলে নেন। ৯২ বলে ১৫টি চার ও পাঁচটি ছক্কায় ১৩৯ রান করে থামেন বেয়ারস্টো।

এরপর অধিনায়ক মরগানকে নিয়ে অজি বোলারদের তুলোধুনো করেছেন হেলস। মরগানও ব্যাট চালিয়ে গেছেন ঝড়ের গতিতে। অস্ট্রেলিয়ার কোনো বোলারই তাদের সামনে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেননি। ইংল্যান্ডের দলীয় সংগ্রহ তখন তিন উইকেটে ৪৫৯ রান। ততক্ষণে ইতিহাস লেখা হয়ে গেছে তাদের। এমন সময় অজি পেসার ঝাই রিচার্ডসনের বলে ক্যাচ তুলে থামতে হয় হেলসকে। এরআগেই ৯২ বলে ১৫টি চার ও পাঁচটি ছক্কায় ১৪৭ রান করেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান।

ইংল্যান্ডের রানগতি থামাতে এদিন আটজন বোলারকে কাজে লাগিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু কেউই পারেননি ইংলিশদের রানবন্যার সামনে বাঁধ তুলতে। সবচেয়ে কম ৭.০০ ইকোনমিতে রান খরচা করেছেন দুই স্পিনার অ্যাস্টন অ্যাগার ও অ্যারন ফিঞ্চ। বাকিরা কেবল রানই খরচা করে গেছেন। এমন দিনেও অস্ট্রেলিয়া দলে তিনজন সুখী ক্রিকেটার আছেন। তারা হলেন শন মার্শ, টিম পেইনে ও ট্রাভিস হেড। কারণ এই তিনজনকে বল হাতে ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের মোকাবেলা করতে হয়নি।

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এটাও পড়ুন

Close
Close