খেলাধুলা

কস্তার গোলে ইরানকে হারাল স্পেন

খেলাধুলা ডেস্ক : কাজান অ্যারেনাতেই বিশ্বকাপ প্রথমবারের মত দেখে ভিএআর (ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি) এর ব্যবহার, পেনাল্টির সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে। ম্যাচটি ছিল ফ্রান্স ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে। একই মাঠে গ্রুপপর্বে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল স্পেন ও ইরান। এই ম্যাচেও বিশ্বকাপ আবার দেখল ভিএআর এর ব্যবহার। তবে এবার তা গোল বাতিল করতে। তাতে হৃদয় ভাঙল ইরানের। কারণ স্পেনের বিপক্ষে তারা পিছিয়ে থাকা অবস্থায় গোলটি করেছিল। গোল বাতিল না হলে ফলাফল অন্যরকমও হতে পারত। তবে স্প্যানিশ স্ট্রাইকার দিয়েগো কস্তার গোলটিই হল ম্যাচের নির্ধারক। তার অবদানেই ১-০ গোলে জিতেছে স্পেন।

ম্যাচের প্রথমার্ধ ছিল স্পেনের বল দখল ও ইরানের রক্ষণের নৈপুণ্য প্রদর্শনের লড়াই। স্প্যানিয়ার্ডরা বেশ কয়েকবার আক্রমণে উঠেছিল। তবে তাদের প্রতিটি চেষ্টাই ব্যর্থ হয়েছে প্রতিপক্ষের রক্ষণের সফলতায়।

দ্বিতীয়ার্ধেও স্পেন বল দখলে রেখে আক্রমণে যায়। তবে ইরান অতিরক্ষণাত্মক নীতি থেকে বের হয়ে এসে প্রতি আক্রমণে যাওয়া শুরু করে। ফিরে আসে ম্যাচের সৌন্দর্য। ম্যাচের ৫০ মিনিটে স্প্যানিশ মিডফিল্ডার সার্জিও বুসকেটসের দারুণ একটি শট রুখে দেন ইরানি গোলরক্ষক আলিরেজা বেইরানভান্দ। এমনকি ফিরতি বল বাইরে পাঠিয়ে দিয়ে লুকাস ভাসকেজের একটি আক্রমণ প্রতিরোধও করেন তিনি।

তবে ৫৪ মিনিটে বহু আকাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পেয়ে যায় স্পেন। মিডফিল্ডার আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা ইরানের ডিবক্সে বল বাড়িয়ে দেন স্ট্রাইকার কস্তাকে। দ্রুত প্রতিক্রিয়ায় ঘুরে তিনি শট নেন গোলে। তবে তা ইরানি ডিফেন্ডারের পায়ে প্রতিফলিত হয়ে আবার তার পায়ে লেগে তারপরই জড়ায় জালে। এটি চলতি বিশ্বকাপে কস্তার তৃতীয় গোল। রাশিয়ার দেনিস চেরিসেভের সাথে যা যৌথভাবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। চার গোল নিয়ে শীর্ষে পর্তুগিজ তারকা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো।

ম্যাচের ৬২ মিনিটে আনন্দের উপলক্ষ পায় ইরানও। একটি ফ্রিকিক থেকে বল স্প্যানিয়ার্ডদের জালে জড়ান দলটির মিডফিল্ডার সাইদ এজাতোলাহি। দলটির খেলোয়াড়রা উল্লাসে মেতে ওঠেন। তবে রেফারি ভিএআর এর মাধ্যমে নিশ্চিত হতে চান গোলটি অফসাইড ছিল কিনা। ভিএআর নিশ্চিত করে গোল হওয়ার আগে বল ইরানি ডিফেন্ডার রামিন রেজাইয়ান অফসাইড ছিলেন। তাই গোলটি বাতিল করেন রেফারি।

এরপর দুই দলই পেয়েছিল বেশ কিছু সুযোগ। ইরানের রক্ষণ সফল হতে দেয়নি স্পেনকে। তবে ম্যাচের ৮৩ মিনিটে ইরানিরা দারুণ সুযোগ পেয়েছিল সমতায় ফেরার। দলটির মিডফিল্ডার ভাহিদ আমিরি স্প্যানিশ ডিফেন্ডার জেরার্দ পিকেকে বোকা বানিয়ে দারুণ একটা ক্রস তুলে দেন স্পেনের ডিবক্সের ভেতর। ছোট বক্সের সামনে থাকা ফরোয়ার্ড মেহদি তারেমি লাফিয়ে উঠে হেডও করেছিলেন। তবে গোলপোস্টের উপর দিয়ে বলটি চলে যায় বাইরে। দ্বিতীয়ার্ধে দারুণ খেলা ইরানের আর সমতায় ফেরা হয়নি। ম্যাচ জিতে মাঠ ছাড়ে স্পেন।

এই জয়ে ‘বি’ গ্রুপে ৪ পয়েন্ট নিয়ে পর্তুগালের সাথে যৌথভাবে শীর্ষে স্পেন। ৩ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে ইরান। ২ ম্যাচ হারায় মরক্কোর বিশ্বকাপ গ্রুপপর্বেই শেষ তা নিশ্চিত। তবে কাগজে-কলমে এখনও সুযোগ রয়েছে ইরানের। এজন্য নিজেদের শেষ ম্যাচে পর্তুগালের বিপক্ষে ম্যাচ জিততে হবে তাদের। আর প্রার্থনা করতে হবে যাতে মরক্কো হারিয়ে দেয় স্পেনকে।

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এটাও পড়ুন

Close
Close