রাজনীতি

এবার ড. কামাল ও জাফরুল্লাহর সঙ্গে ব্যারিস্টার মইনুলের ফোনালাপ ফাঁস

বার্তাবাহক ডেস্ক : জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা এবং গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে বিবৃতি এবং আইনি সহায়তা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন। এ কারণে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন ঐক্যফ্রন্ট ত্যাগ করার কথা বলেছেন।

ফোনে ড. কামালকে ব্যারিস্টার মইনুল বলেন, ‘কামাল ভাই, আমার যা মনে হয় আপনি একটা স্টেটমেন্ট ইস্যু করতে পারেন কি না। বিভিন্নভাবে কেস দিয়ে তাকে হ্যারাস করা হচ্ছে, আমাদের ঐক্য প্রক্রিয়া যাতে অগ্রসর হতে না পারে এবং আমরা এটা কনডেমড করি। দেখেন চিন্তা করে, দুই সেনটেন্সের একটা স্টেটমেন্ট। আজকে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে আমি মনে করি একটা রিঅ্যাকশন দেয়া উচিত।’

জবাবে ড. কামাল বলেন, ‘আমি ঐক্যফ্রন্টকে এগুলোর মধ্যে টানতে চাচ্ছি না। ঐক্যফ্রন্ট নাথিং টু ডু উইফ দিস।’

তখন ব্যারিস্টার মইনুল বলেন, ‘তাহলে আপনি থাকেন কামাল ভাই। আই গো। আই অ্যাম নট ইন দ্যা ফ্রন্ট।’

এ ঘটনার পর আরেকটি ফোনালাপে ঐক্যফ্রন্টের আরেক নেতা ডা. জাফরুল্লাহর সঙ্গে ফোনালাপ হয় মইনুল হোসেনের। জাফরুল্লাহকে মইনুল বলেন, ‘আমি বললাম যে দেখেন ড. কামাল আমাকে আঘাত করে মামলা করতিছে, হ্যারেস করতিছে। আমি মনে করি আপনার পক্ষ থেকে একটা স্টেটমেন্ট দেওয়া উচিত যে এভাবে দলীয় ঐক্যের মধ্যে বন্ধকতা সৃষ্টি করতে চেষ্টা করা হচ্ছে। সে বলে ফেলল, আমি এই বিষয়কে ঐক্যের মধ্যে আনতে চাই না।’

এ সময় ডা. জাফরুল্লাহ মইনুল হোসেনকে চুপ থাকার পরামর্শ দেন। জবাবে মইনুল হোসেন বলেন, ‘আমি আমার নিজের ঐক্যফ্রন্টে থাকব। তার ঐক্যফ্রন্টে থাকব না। দেখি তার ঐক্যফ্রন্টে কয়টা থাকে। উইথ আউট মইনুল হোসেন তার কিসের ঐক্যফ্রন্ট।’

এ সময় ড. কামালকে ‘কাওয়ার্ড’ বলে সম্বোধন করেন জাফরুল্লাহ।

প্রসঙ্গত, এর আগে সাংবাদিক রব মজুমদারের সঙ্গে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের একটি ফোনালাপ ফাঁস হয়। ফাঁস হওয়া প্রায় আড়াই মিনিটের ওই ফোনালাপে রব মজুমদারের সঙ্গে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি প্রসঙ্গে কথা বলেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের এই উপদেষ্টা।

ফোনালাপের শুরুতে ব্যারিস্টার মইনুল বলেন, কি খবর মজুমদার সাহেব? এর উত্তরে রব মজুমদার বলেন, জ্বি, আসসালামুআলাইকুম স্যার।

তখন মইনুল বলেন, জ্বি বলেন। মজুমদার বলেন, ‘কেমন আছেন স্যার, আপনি?’

এর উত্তরে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা বলেন, ‘আছি… জেলের ভাত কয়েকদিন খেতে হবে আমাকে।সেজন্য রেডি আছি।’ তখন মজুমদার বলেন, ‘আচ্ছা আচ্ছা।’

এর পর সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি প্রসঙ্গে ব্যারিস্টার মইনুল বলেন, ‘কেস করছে দুইটা আরও নাকি করবে। এই মামলা টামলা দিয়ে এরা… এদের মামলার-টামলার নামে রাজনীতিতে আসা উচিত। ঠিক আছে, করুক। সবচেয়ে বড় কথা হলো এই মেয়েটার পক্ষের ৯৫% লোক আমার পক্ষে। প্রথম আলোর একটি সার্ভে হইছে, সেখানে ৯৫% লোক সাপোর্ট মি আর ৫% লোক তার পক্ষে। একটা মেয়েলোক যে এত বাজে হইতে পারে আমি তো জানতাম না।’

তখন মজুমদার বলেন, আপনি নাকি লন্ডন দেখছেন বলে। এর জবাবে মইনুল বলেন, ‘কোথায় চাকরি করে তা জানতাম নাকি। ঘটনাটা আমি এখন শুনতেছি। বাট ঘটনাটা আমি বলছি, আমি রাগ হয়ে বলছি। কিন্তু একটি মেয়ের তো এটা বাড়ানো আর ঠিক না। কারণ আমি সেজন্য তাকে ফোন করে বলছি, দুঃখপ্রকাশ করেছি এবং ক্ষমাও চাইছি। কারণ একটা মেয়ের ব্যাপারে আমার ওভার জেনারেস হতে কোনো অসুবিধা নাই। তাই না। ফলে আমি মাফও চাইছি। এর পরে সে তার তো এই কাজ। এটা তো আমি জানতাম না।’

ব্যারিস্টার মইনুল আরও বলেন, ‘ভদ্রমহিলাকে বললাম, আপনি আমাকে প্রভোক করেছেন। আমি তাতে রেগে গেছি। একটি স্লিপ হয়ে গেছে আমার। তারপরও আমি …দিয়ে বলছি। এখন দেখছি, সে ৯৫ লোকের কাছে বাজে বলে পরিচিত।’

এর পর মজুমদার বলেন, আপনি আর কামাল হোসেনকে নাকি লন্ডনে দেখছে তারেকের সঙ্গে মিটিং করতে। এ রকম একটা। তখন মইনুল বলেন, ‘আমাদের মিটিং আমি তারেকের সঙ্গে মিটিংয়ে যাব কেন? এটি কোথাকার ছাগল? এটা গরু, কাউ না মুরগি?’

এ কথা শুনে মজুমদার হাসতে থাকেন। তখন মইনুল বলেন, ‘আমরা তারেকের নেতৃত্ব ধ্বংস করার জন্যই ড. কামালকে আনছি।’

প্রসঙ্গত, গত ১৬ অক্টোবর টকশোতে সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে ‘চরিত্রহীন’বলে মন্তব্য করেন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। এ ঘটনায় ২১ অক্টোবর ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মাসুদা ভাট্টি এবং জামালপুর আদালতে যুব মহিলা লীগের জামালপুর শাখার আহ্বায়ক ফারজানা ইয়াসমীন লিটা ২০ হাজার কোটি টাকার মানহানির অভিযোগে মামলা করেন। এ মামলায় আদালত পৃথকভাবে মইনুল ইসলামের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। এই আদেশের পর ওইদিনই হাইকোর্টে হাজির হয়ে জামিন নেন মইনুল হোসেন। এই জামিন স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করেছে। এদিকে মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন স্থানে আরও কয়েকটি মামলা হয়েছে। রংপুরে দায়ের করা মামলায় গত সোমবার পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। মঙ্গলবার তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

 

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এটাও পড়ুন

Close
Close