আলোচিত

এসপি হারুনের নিয়োগে প্রশ্নবিদ্ধ হতে পারে নারায়ণগঞ্জের নির্বাচন: মাহবুব তালুকদার

বার্তাবাহক ডেস্ক : আলোচিত পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ নারায়ণগঞ্জের নতুন পুলিশ সুপার (এসপি) হিসেবে নিয়োগে আপত্তি তুলেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। তার মতে, নির্বাচনের আগে তাকে নিয়োগ দিলে নারায়ণগঞ্জের নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হতে পারে।

রোববার (০২ ডিসেম্বর) নির্বাচন কমিশনের অনুমোদনের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, কমিশনের বৈঠকে হারুন অর রশীদকে নারায়নগঞ্জের এসপি হিসেবে নিয়োগের বিষয়টি উঠলে মাহবুব তালুকদার আপত্তি জানান। তিনি নির্বাচনের আগে এসপি হারুনকে নারায়ণগঞ্জে নিয়োগ দিলে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হতে পারে বলে মন্তব্য করেন। তবে ভোটের পরে তাকে নিয়োগ দেয়া যেতে পারে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

তবে মাহবুব তালুকদার ছাড়া অন্য তিন কমিশনার সম্মতি জানালে হারুনকে নারায়ণগঞ্জে বদলির অনুমতিপত্রে সম্মতি দেয় ইসি।

এর আগে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) আনিসুর রহমানকে প্রত্যাহার করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ২৭ নভেম্বর মঙ্গলবার তাকে প্রত্যাহার করা হয়। বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের করা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে প্রত্যাহার করা হয় বলে ইসি সূত্রে জানা গেছে।

এ বিষয়ে মাহবুব তালুকদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “অামি এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করব না।”

নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, কে অাপত্তি করল তা জানি না। তবে অামি সম্মতি দিয়েছি।

উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জে সদ্য যোগদানকৃত এসপি হারুন অর রশীদ ২০১৪ সালের ২৪ আগস্ট পুলিশ সুপার হিসেবে গাজীপুরে যোগদান করেছিলেন। ২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের তৃতীয় দফায় গাজীপুর সদর, শ্রীপুর ও কাপাসিয়ায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী ওই বছরের ২১ এপ্রিল এসপি হারুন অর রশিদকে গাজীপুর থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছিল। নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ার পর প্রত্যাহারের আদেশ তুলে নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাকে ওই বছর ৩ মে গাজীপুরের পুলিশ সুপার পদে হিসেবে পুনর্বহাল করেন। দুই দফা মিলিয়ে ৪ বছর গাজীপুরে ছিলেন তিনি।

এসপি হারুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজ বিজ্ঞানে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করে ২০তম বিসিএস-এর মাধ্যমে ২০০১ সালে এএসপি হিসেবে পুলিশ বাহিনীতে যোগদান করেন। ডিএমপিতে থাকাকালীন সময় বিএনপি নেতা জয়নুল আবেদিন ফারুককে মারধরের ঘটনায় আলোচিত হয়েছিলেন তিনি।

২০১১ সালের ৬ জুলাই জাতীয় সংসদ ভবনের সামনে মানিক মিয়া অ্যাভিনিউয়ে হারুনের মারধরে রক্তাক্ত ও আহত হন বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক। তখন তিনি তেজগাঁও বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) ছিলেন।

এছাড়াও সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর ইসিতে বিএনপির দেয়া ৯২ জন ‘দলবাজ’ কর্মকর্তার মধ্যে হারুনেরও নাম ছিল।

 

আরো জানতে…..

এসপি হারুনের বিদায়ে গাজীপুর শহরে ফিরে এলো স্বস্থির প্রাণ

মন্ত্রী-সাংসদদের পাত্তা ছিলনা এসপি হারুনের কাছে (দ্বিতীয় পর্ব)

গাজীপুরে চার বছরের রাজত্ব শেষ করলো এসপি হারুন (পর্ব-১)

 

 

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close