সারাদেশ

পরীক্ষায় অংশ নিয়েই জজ, অতঃপর গ্রেফতার!

বার্তাবাহক ডেস্ক : সহকারী জুডিশিয়াল জজ পরিচয় দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে গাজীপুরের কাপাসিয়ায় রাশেদুল ইসলাম সোহাগ (৩০) নামে এক প্রতারককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার রাতে গ্রেফতারের পর সোমবার তাকে গাজীপুর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

রাশেদুল ইসলাম সোহাগ উপজেলার বারিষাব ইউনিয়নের ভেড়ারচালা গ্রামের আ. খালেকের ছেলে। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে বিভিন্ন সমস্যা সমাধান, নানা প্রতিষ্ঠানে চাকরি, বদলি, মামলা থেকে খালাস ও জামিন করে দেয়াসহ বিভিন্ন প্রতিশ্রুতিতে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।

থানা সূত্রে জানা যায়, গত বেশ কিছুদিন ধরে রাশেদুল ইসলাম সোহাগ তৃতীয় সহকারী জজ সাতক্ষীরা পরিচয় দিয়ে স্থানীয়দের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল। কথামতো কোনো কাজই সে করে দিতে না পারায় লোকজনের সন্দেহ হলে তারা খোঁজখবর নিয়ে জানতে পারে সে আসলে কোনো জজ নয়।

এ ব্যাপারে একধিক লোক থানায় এসে অভিযোগ করলে কাপাসিয়া থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মনিরুজ্জামান খানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল তার বাড়িতে গেলে সে পুলিশকে জজ বলেই পরিচয় দেয়।

মনিরুজ্জামান খান জানান, তখন পুলিশ রাশেদুল ইসলাম সোহাগকে চ্যালেঞ্জ করে এবং প্রমাণপত্র দিতে অনুরোধ জানায়। তিনি কোনো প্রমাণ দিতে না পারায় তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়।

ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের পর তিনি জানান, তিনি প্রকৃত পক্ষে জজ নয়। তবে সে জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে মৌখিক পরীক্ষা পর্যন্ত অংশ নিলেও চূড়ান্তভাবে উত্তীর্ণ হতে পারেনি। তারপর থেকে সে নিজেকে জজ পরিচয় দিয়ে স্থানীয় মো. অরুন মিয়ার কাছ থেকে ৩৭ হাজার টাকা, লিটন মিয়ার কাছ থেকে ৯০ হাজার টাকা ও ইমাম উদ্দিনের কাছ থেকে ১৫ হাজার টাকা নেয়ার কথা স্বীকার করে।

এস আই রাসেল বাদী হয়ে কাপাসিয়া থানায় তার বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা দায়ের করেন।

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close