আইন-আদালত

৪ ল্যাবরেটরিতে পাস্তুরিত সব দুধের নমুনা পরীক্ষা করানোর নির্দেশ হাইকোর্টের

বার্তাবাহক ডেস্ক : দেশে পাস্তুরিত দুধ প্রস্তুতকারী ১৪টি কোম্পানির দুধের নমুনা পৃথক চারটি ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করানোর জন্য বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনকে (বিএসটিআই) নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী সাত দিনের মধ্যে পরীক্ষা সম্পন্ন করতে বলেছেন আদালত।

বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ, জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট ও আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণাকেন্দ্র এই চার প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে দুধ পরীক্ষা করাতে হবে। পাস্তুরিত দুধের নমুনা সংগ্রহ করে জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর টোটাল ব্যাকটেরিয়া কাউন্ট, কলিফর্ম, স্ট্যাফিলোকক্কাস, এসিডিটি, ফর্মালিন, ডিটার্জেন্ট ও এন্টিবায়োটিক পরীক্ষা করতে বলেছেন হাইকোর্ট।

আদেশে বলা হয়, পরীক্ষাকারী চার প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে বাজার থেকে পাস্তুরিত দুধের নমুনা সংগ্রহ করবে বিএসটিআই।

দুধে ক্ষতিকর উপাদানের উপস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে পাস্তুরিত দুধ পরীক্ষা করার জন্য নির্দেশনা চেয়ে দায়ের করা একটি রিট আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি সৈয়দ রিফাত আহমেদ ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

শুনানির সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের পরীক্ষায় দুধে ক্ষতিকর উপাদান পাওয়া যাওয়ার প্রেক্ষিতে বিএসটিআই কী ব্যবস্থা নিয়েছে তা জানতে চান হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে দুধে এন্টিবায়োটিক সনাক্ত করতে প্রয়োজনীয় ল্যাবরেটরি ও মানদণ্ড তৈরিতে কতদিন সময় লাগবে তাও আদালতকে জানাতে বলা হয়। এ ব্যাপারে খোঁজ-খবর নিয়ে আদালতকে জানাতে বিএসটিআইয়ের আইনজীবী ব্যারিস্টার সরকার এম আর হাসানকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

শুনানির সময় রিটকারীর পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার অনীক আর. হক দুধ নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা সংক্রান্ত দ্য ডেইলি স্টারের প্রতিবেদন আদালতের গোচরে আনেন।

যা রয়েছে দুধ পরীক্ষার প্রতিবেদনে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা গত এক মাসে বাজার থেকে দুধের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করে এন্টিবায়োটিকের উপস্থিতি পেয়েছেন। গত ২৫ জুন ঢাবির ফার্মেসি অনুষদ ও বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ সেন্টার থেকে জানানো হয় দুধের নমুনায় তারা ডিটার্জেন্ট ও তিন ধরনের এন্টিবায়োটিকের উপস্থিতি পেয়েছেন। তবে সেদিনই, বিএসটিআই হাইকোর্টে প্রতিবেদন দিয়ে জানায় যে তাদের পরীক্ষায় দুধে কোনো ক্ষতিকর উপাদান মেলেনি।

এর পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা আবার পাস্তুরিত ও অপাস্তুরিত দুধের ১০টি নমুনা পরীক্ষা করে জানান যে সবগুলোতেই মানুষের জন্য ব্যবহার হয় এমন চার ধরনের এন্টিবায়োটিক – অক্সিটেট্রাসাইক্লিন, এনরোফ্লক্সাসিন, সিপ্রোফ্লক্সাসিন ও লেভোফ্লক্সাসিন উপস্থিত রয়েছে। বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের সদ্যসাবেক পরিচালক অধ্যাপক এবিএম ফারুক গতকাল জানান, তাদের পরীক্ষা করা তিনটি নমুনায় চারটি এন্টিবায়োটিক ও ছয়টি নমুনায় তিনটি এন্টিবায়োটিক ও একটি নমুনায় দুটি এন্টিবায়োটিক ছিল।

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এটাও পড়ুন

Close
Close