সারাদেশ

কালীগঞ্জে অপহৃত যুবককে মীরের বাজার থেকে উদ্ধার করেছে র‍্যাব-১

বার্তাবাহক ডেস্ক : বন্ধুর বাড়ী যাওয়ার পথে মোঃ মাহবুবুর রহমান (২৫) নামে এক যুবককে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায় একদল অপহরণকারী। পরে মোবাইল ফোনে দু’লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে।

সন্ধান না পেয়ে তার স্বজনরা মাহবুবুরকে উদ্ধারের জন্য সহযোগিতা চেয়ে গাজীপুরের পোড়াবাড়িস্থ র‍্যাব-১ এর ক্যাম্পে অভিযোগ করার পর অভিযান শুরু করে র‍্যাব-১ এর সদস্যরা।

অপহরণের ১২ ঘন্টা পর মীরের বাজার এলাকায় থেকে তাকে উদ্ধার করে র‍্যাব-১ এর সদস্যরা।

অপহৃত ওই যুবক গাজীপুরের কালীগঞ্জ থানার বড়নগর গ্রামের মৃত রমিজ উদ্দিনের ছেলে।

শনিবার সন্ধ্যায় র‍্যাব-১’র স্পেশালাইজ কোম্পানী পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন এ তথ্য জানিয়েছেন।

র‍্যাব-১ এর ওই কর্মকর্তা জানান, শুক্রবার সকালে কালীগঞ্জের বড়নগর এলাকার বাড়ি থেকে মাহবুবুর রহমান দড়িপাড়া এলাকার এক বন্ধুর বাড়ী যাচ্ছিল। পথে কয়েক যুবক পথরোধ করে তাকে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।

স্বজনরা বিভিন্নস্থানে খোঁজাখুঁজি করে তার সন্ধান না পেয়ে কালীগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করে।

একপর্যায়ে অপহরণকারীরা মাহবুবুর রহমানের বড় ভাইয়ের কাছে মোবাইল ফোনে দু’লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। মুক্তিপণের টাকা দেওয়া না হলে অপহৃতকে হত্যা করার হুমকি দেয় তারা। এসময় কাউকে কিছু না জানানোর জন্যও ভীতি প্রদর্শণ করে অপহরণকারীরা।

স্বজনরা মাহবুবুর রহমানের সন্ধান না পেয়ে তাকে উদ্ধারের জন্য সহযোগিতা চেয়ে গাজীপুরের পোড়াবাড়িস্থ র‍্যাব-১ এর ক্যাম্পে অভিযোগ করেন। বিষয়টি অবহিত হয়ে র‍্যাব সদস্যরা অভিযান শুরু করে।

এদিকে অপহরণের প্রায় ১২ ঘন্টা পর রাতে মুক্তিপণের টাকা নেওয়ার আশায় অপহৃত যুবককে নিয়ে অপহরণকারীরা গাজীপুরের পূবাইল থানার মীরের বাজার এলাকায় অবস্থান করছে। এ গোপন সংবাদ পেয়ে র‍্যাব-১ এর কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুনের নেতৃত্বে র‍্যাব সদস্যরা সেখানে অভিযান চালায়। র‍্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে অপহৃত মাহবুবুর রহমানকে ফেলে রেখে অপহরণকারীরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। পরে অপহৃত মাহবুবুর রহমানকে উদ্ধার করে র‍্যাব সদস্যরা।

এব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানায় র‍্যাব।

আরও দেখুন

এরকম আরও খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close